September 22, 2021
লিওনেল মেসি

লিওনেল মেসির যত সব রেকর্ড!! All the records of number 1 Messi !!

লিওনেল মেসির যত রেকর্ড!! All the records of Messi !!

আসসালামু আলাইকুম পাঠক ভাইয়েরা। আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমিও ভালো আছি আপনাদের দোয়ায়। আজ আমি আপনাদের সাথে স্বপন আহমেদ। তো আজ আমি আপনাদের সাথে যার ক্যারিয়ার এর রেকর্ড নিয়ে আলোচনা করতে যাচ্ছি তাকে আপনারা শুধুই চেনেনই না তাকে নিয়ে অনেক সময় আপনারা ঝগড়ায় জড়িয়ে পড়েন।সে আর কেউ নয় বর্তমান সময়ের ফুটবল বিশ্বের রাজা লিওনেল মেসি। যার পুরো ক্যারিয়ার রেকর্ড এ ভরা তিনি ব্যক্তিগত ভাবে এতসব রেকর্ড করেছেন যে আপনার আমার মনে রাখা সম্ভব নয়। আর এই কারণে তাকে ফুটবল জাদুকরও বলা হয়। কারন খেলার মাঠে সে প্রতিপক্ষকে এমন ভাবে ঘায়েল করেন যে শুধু তাকে নিয়েই বিপক্ষ দলকে আলাদা ছক আঁকতে হয়।

মেসি সেই ছোট বেলা থেকে একের পর এক ফুটবল বিশ্বকে তার কৃতিত্ব দেখিয়ে যাচ্ছেন। এবং বিখ্যাত ব্যক্তিদের রেকর্ড ভেঙ্গে নিজের করে নিচ্ছেন। এখন আসুন তার বিষয়ে একটু জানি।

লিওনেল মেসি

লিওনেল মেসি

লিওনেল মেসির পুরা নাম হল লিওনেল আন্দ্রেস মেসি। তিনি ১৯৮৭সালে ২৪ শে জুন আর্জেন্টিনার রোসারিও শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি আর্জেন্টিনার পেশাদার ফুটবলার। তার উচ্চতা ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি। তিনি একজন আক্রমন ভাগের খেলোয়াড়। তার জার্সি নম্বর ১০।
লিওনেল মেসি মাত্র ১৩ বছর বয়সে গ্রোথ হরমোন রোগে আক্রান্ত হলে কোন দলই তার চিকিৎসার ভার না নিলে কেবল মাত্র বার্সেলোনা ক্লাব রাজি হয়। তখন মেসি বার্সেলোনার সাথে চুক্তিবদ্ধ হন এবং স্পেনে পারি জমান। বার্সেলোনার যুব পর্যায়ে তিনি নিজের সামথ্যের প্রমাণ দেখাতে শুরু করেন। ফলে ২০০৪ সালে অক্টবরে ১৭ বছর বয়সে তার অভিষেক হয়।

২০০৫ সালে আর্জেন্টিনাতে তার অভিষেক ঘটে। পেশাদার ফুটবল জীবনের শুরুতে ইনজুরি-প্রবণ হলেও এগুলাকে তিনি জয় করে আজ ফুটবল ইতিহাসে এক আইকন খেলোয়াড়। বর্তমান তিনি আর্জেন্টিনা ও বার্সেলোনার অধিনায়কের ভূমিকা পালন করছেন। এবং তিনি এখনো পুরো ফর্মে খেলে যাচ্ছেন। তো বন্ধুরা চলুন জেনে আসি দলের হয়ে ও ক্লাবের হয়ে কি কি রেকর্ড গড়েছেন।

লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনায় যত রেকর্ড !!

লিওনেল মেসি আর্জেন্টিনার ফুটবল ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোলদাতা। এতে তিনি বাতিস্তার রেকর্ড ভাঙ্গেন। বয়সভিত্তিক পর্যায়ে মেসি আর্জেনটিনাকে ২০০৫ ফিফা ইয়ুথ চ্যাম্পিয়নশিপ জেতান। সেই টুর্নামেন্টে তিনি সর্বোচ্চ গোলদাতা এবং সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার অর্জন করেন। এছাড়াও তিনি ২০০৮ সামার ডে অলম্পিকে আর্জেন্টিনার হয়ে ফুটবলে স্বর্ণপদক জয় করেন।

২০০৬ ফিফা বিশ্বকাপে গোল করে তিনি সর্বকনিষ্ঠ আর্জেন্টাইন হিসেবে বিশ্বকাপে গোল করার কৃতিত্ব অর্জন করেন। ২০০৭ সালে কোপা আমেরিকায় তিনি সেরা যুব খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতেন। ফলে এই আসরে আর্জেন্টিনা দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে। ২০১১ সালের তিনি আর্জেন্টিনা দলের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব নেন। অধিনায়ক হিসেবে তিনি আর্জেন্টিনার হয়ে টানা তিনটি প্রতিযোগিতার ফাইনাল খেলেছেন: ২০১৪ সালে ফিফা বিশ্বকাপ, ২০১৫ সালে কোপা আমেরিকা এবং ২০১৬ সালে কোপা আমেরিকা।

তিনি ২০১৪ সালের বিশ্বকাপে গোল্ডেন বল পুরস্কার জয় করেন। ২০১৮ সালে মেসি জাতীয় দল থেকে অবসরের ঘোষণা দেন, তবে কয়েক মাস পরেই তিনি তাঁর মত বদলে পুনরায় জাতীয় দলে ফিরে আসেন এবং ২০১৮ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের একটি গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ৩ গোল করে বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার টিকেট নিশ্চিত করেন। ২০১৮ বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেন। ২০১৯ কোপা আমেরিকায় তিনি দলকে নেতৃত্ব দেন।

আরও পড়ুনঃ কে সেরা বিরাট কোহলি নাকি বাবর আজম? Who is the best Virat Kohli or Babar Azam?

লিওনেল মেসির বার্সেলোনাতে যত রেকর্ড !!

লিওনেল মেসি

মেসি স্পেনের সর্বোচ্চ স্তরের পেশাদার ফুটবল টুর্নামেন্ট লা লিগায় ফুটবল ক্লাব বার্সেলোনা দলের হয়ে একজন আক্রমণ ভাগের খেলোয়াড় হিসেবে খেলে থাকেন। তিনি বর্তমানে বার্সেলোনার অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।লিওনেল মেসি টানা ৪ বার সহ মোট ৬ বার ব্যালন ডি ওর জয়ের কৃতিত্ব অর্জন করেছেন, যা ফুটবল ইতিহাসে সবার উপরে।

এর পাশাপাশি তিনি সর্বোচ্চ ৬ বার ইউরোপীয় গোল্ডেন শু জয়েরও কৃতিত্ব অর্জন করেছেন। তাঁর পেশাদার ফুটবল জীবনের পুরো সময়ই কেটেছে বার্সেলোনায়, যেখানে তিনি ১০টি লা লিগা, ৪টি উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লীগ এবং ৬টি কোপা দেল রে সহ মোট ৩৩টি শিরোপা জয় করেছেন, যা বার্সেলোনার ইতিহাসে কোন খেলোয়াড়ের পক্ষে সর্বোচ্চ।

এছাড়াও মেসির দখলে রয়েছে লা লিগায় সর্বোচ্চ সংখ্যক গোল ৪৪০, লা লিগা ও ইউরোপের যেকোনো লীগে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোল ৫০, ইউরোপে এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোল ৭৩, এক পঞ্জিকাবর্ষে সর্বোচ্চ গোল ৯১, এল ক্লাসিকোর ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোল ২৬ এবং লা লিগা ৩৪ ও চ্যাম্পিয়নস লীগে ৮ বার সর্বোচ্চ হ্যাট্রিকের কৃতিত্ব। পাশাপাশি মেসি একজন প্লেমেকার হিসেবেও পরিচিত। তিনি লা লিগা ১৮৩ এবং কোপা আমেরিকার ১২ ইতিহাসে সর্বোচ্চ গোলে সহায়তাকারীর কৃতিত্বেরও মালিক।

এছাড়াও তিনি জাতীয় দল ও ক্লাবের হয়ে ৭০০ বেশি গোলের মালিক একমাত্র তিনি। আর একারনেই ২০১৪ সালে বার্সা তাকে ফুটবল ইতিহাসের সর্বকালের সেরা ফুটবলার উপাধি দেয়। এছাড়াও সারা বিশ্বে মানুষের কাছে মেসি একজন বিশ্ব সেরা ফুটবলার। তবে কিছু সংখ্যক ফুটবল বিশ্লেষক না মানলেও বেশির ভাগ কিংবদন্তি তাকে বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় মনে করেন।

কারন ফুটবল ইতিহাসে একমাত্র মেসি ই পেরেছে মন মাতানোর মতো ম্যাচ উপহার দিতে। সেই ছোট বেলা থেকে নানা সমস্যার মোকাবিলা করেও সে ঠিকই ফুটবল বিশ্বকে জয় করেছে। আর আমার মতে এই খেতাব তারই পাওয়া উচিত।কারন যে জয় করতে জানে সেই তো আসল বীর। মেসির বয়স এখন ৩৩ বছর যদিও সে ক্লাবের জন্য অনেক কিছুই অর্জন করেছে কিন্ত দেশের হয়ে জেতা হয়নি কিছুই। এখনও তার অনেক কিছু দেয়ার আছে তাই এখনো হয়তো সেরা টা দিয়ে যেতে পারলে তাইলে দেশের জন্য কিছু করে যেতে পারবেন। আর আমরাও সেই প্রত্যাশা করি যেন তার পুরো ক্যারিয়ার সাজিয়ে যেতে পারেন।

তো বন্ধুরা আজ এই টুকুই আমি যত টুকু জানি আজ আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম ভুল হলে ক্ষমার দৃষটিতে দেখবেন। আর হ্যা আমাদের এই পোস্ট যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই লাইক ,কমেন্ট এবং শেয়ার করতে ভুলবেন না। কারন আপনারদের ভালো লাগার জন্যই আমাদের এতো প্রচেষ্টা। তো আবার দেখা এরকম আরও অনেক পোস্ট নিয়ে ততো ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। আল্লাহ হাফেজ

এই ছিল আজকের পোস্ট, আশা করি ভালো লেগেছে। এই রকম আরও পোস্ট পেতে চাইলে আমাদের সাথেই থাকুন। পোস্ট যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তাহলে, আমাদের পোস্ট গুলি শেয়ার করতে ভুলবেন না।কেমন লেগেছে তা অবশ্যই কমেন্ট করে জানতে ভুলবেন না যদি কোনো ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই ক্ষমা সন্দুর দৃষ্টিতে দেখবেন

ধন্যবাদ আর্টিকেলটি পরার জন্য, ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন আজকের মত আল্লাহ্‌ হাফেজ।

ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে যুক্ত থাকুন আমাদের সাথে। যুক্ত হতে – এখানে ক্লিক করুন

Writing By
Shapon Ahmed

Leave a Reply

Your email address will not be published.