September 22, 2021
ভিডিও গেম

সবচেয়ে জনপ্রিয় ১০টি ভিডিও গেম | Top 10 Video games

সবচেয়ে জনপ্রিয় ১০টি ভিডিও গেম

বিনোদনের মাধ্যম হিসেবে ভিডিও গেমস এর ব্যবহার মূলত জনপ্রিয় হয়ে ওঠা শুরু করে গত শতকের নব্বই এর দশক নাগাদ। তবে বাণিজ্যিক ভাবে প্রথম গেম মুক্তি দেয়া হয়েছিল ১৯৭০ এর দশকে। এখনো যাদের বয়স ৪০ পেরোয়নি তাদের সবারই এক বা একাদিক প্রিয় ভিডিও গেমস থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত মুক্তি পাওয়া ভিভেও গেমস এর মধ্যে সেরা ১০ টি তালিকায় কোনগুলো থাকতে পারে সেই বিষয়ে কখনো ভেবেছেন কি। আপনাদের সেই প্রশ্নের উত্তর দিতেই আজকের এই আলোচনা।

প্রশ্ন হচ্ছে কোন মানদন্ডীর বিচারে সেরা ১০ টি গেমস বেছে নেয়া হবে।সম্ভাব্য একটা মানদন্ড হতে পারে কোন গেম বাণিজ্যিক ভাবে কতটা সফল হয়েছে। সমস্যা হচ্ছে অনেক ভিডিও গেমস ই কিন্তু বিনা পয়সায় খেলার সুযোখ থাকে। তাই সেরা ১০ টি গেমস এর তালিকা নির্ধারণে সম্ভাব্য আর একটি মানদন্ড হতে পারে কোনটির কত সংখক সংক্রিয় ব্যাবহারকারী আছে।

এই পোস্টে আমরা আপনাদের বাণিজ্যিক ভাবে সফল গেমস গুলোর সম্পর্কে জানাবো। অর্থাৎ যে গেমস গুলোর সবচে বাসি সংখক কপি বিক্রি হয়েছে। তাই চলন আর দেরি না করে বাণিজ্যিক সফলতার বিচারে ইতিহাসের সেরা ১০ ভিডিও গেমস সম্পর্কে জেনে আসি।

ডাক হান্ট

ডাক হান্ট আমাদের তালিকায় দশম স্থানে রয়েছে ১৯৮০ দশকের শুরুর দিকে মুক্তি পাওয়া একটি ভিডিও গেম। নিন্টেন্ডো নামক একটি প্রতিষ্ঠান এর তৈরি করা ডাক হান্ট নামের এই গেমটি মুক্তি দেয়া হয় ১৯৮৪ সালে। প্রথম জাপানে মুক্তি পাওয়ার পরের বছরে এটা উত্তর আমেরিকায় মুক্তি দেয়া হয়। আর সবশেষে ১৯৮৭ সালে এটি ইউরোপ মহাদেশে মুক্তি পায়।

এই গেমটি খেলতে নিন্টেন্ডোর তৈরি করা একটি বিশেষ ধরণের খেলনা বন্দুক ও কিনতে হত। তারপর CRT টেলিভিশন এ কনসাউল এবং বন্দুক সংযুক্ত করে টিভি পর্দায় আসা হাঁস লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে হত। পর্দায় কখনো একটা আবার কখনো জোড়ায় জোড়ায় হাঁস দেখা যেত। প্রতি বার হাঁস গুলোকে ধরার জন্য আপনি তিন বার গুলি ছুড়তে পারবেন। সেই তিন গুলিতে হাঁস গুলো ধরাসিহি হলে আপনি পরবর্তী রাউন্ড এ যেতে পারবেন। নয়তো সেখানেই গেম ওভার। সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী এই ডাক হান্ট গেম এর মোট ২ কোটি ৮৩ লক্ষ কপি বিক্রি হয়েছে।

ভিডিও গেম

ডিয়াব্লো থ্রি

ডিয়াব্লো থ্রি,আমাদের তালিকার নবম স্থানে রয়েছে ব্লিজার্ড ইন্টারটেনমেন্ট নির্মিত ভিডিও গেম ডিয়াব্লো থ্রি। ২০১২ সালে মুক্তি পাওয়া এই গেমটির নাম থেকে বুজতে পারছেন এটি মূলত ডিয়াব্লো গেমটির তৃতীয় সংস্করণ। এই সংস্করণে আপনি ৭ ধরণের চরিত্র থেকে আপনি যেকোন একটাকে বেঁচে নিতে পারবেন। এর শাখা গুলো হচ্ছে বারবারিয়ান, ক্রুসেডার, যেমনহান্টার, মংক, নেক্রোম্যানচার, উইজারড। যথারীতি মূল লক্ষ্য ছিল লর্ড অফ টেরর ডিয়াব্লোকে বদ করার।

আরও পড়ুনঃ বিশ্বের জনপ্রিয় ৫ টি মোবাইল অ্যান্ড্রয়েড গেমস | Popular 5 Mobile Android Games in the World

মুক্তির ২৪ ঘন্টায় গেমটি মোট ৩৫ লক্ষ কপি হয়েছিল। যার ফলে পিসি গেমস এর মধ্যে দ্রুততম বিক্রির এক নতুন রেকর্ড স্থাপন করে সর্ব শেষ হিসেবে অনুযায়ী ডিয়াব্লো থ্রি গেমটি মোট ৩ কোটি কপি বিক্রি করেছেন ব্লিজার্ড ইন্টারটেনমেন্ট।

ভিডীও গেম

দ্যা এল্ডার স্ক্রোলস স্কাইরিম

বাণিজ্যিক সফলতার বিচারে সেরা ১০ টি গেমস এর তালিকায় অষ্টম স্থানে রয়েছে  bath is the games Studio নির্মিত দ্যা এল্ডার স্ক্রোলস সিরিজের পঞ্চম সংস্করণ স্কাইরিম। ২০১১ সালে মুক্তি পাওয়া গেমটি তার পূর্ববতী সংস্করণ দ্যা এল্ডার স্ক্রোলস ৪ অবলিবিয়েনের ঘটনাবলীর ঠিক ২০০ বছর পরে শুরুহয়। তামরিয়ান নামক এক সম্রাজ্যের একদম উত্তরের প্রদেশ স্কাইরিমের চলমান এই গমের ঘটনাক্রম অনুযায়ী ওর্য়াল্ড উইন নামক পৃথিবী ধ্বংসকারী ড্রাগনটি জেগে উঠেছে।

তাই আপনার হিরোকে সেই ড্রাগনটিকে হত্যা করতে এগিয়ে যেতে হবে। তবে প্রতিমধ্যে বিভিন্ন চ্যালেজ আর প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হবে আপনার হিরো। যা অতিক্রম এর মাধ্যমে নিজের শক্তি এবং ধুক্ষতাও বাড়িয়ে নিতে পারবে আপনার বেচে নেয়া চরিত্রটি। আনুষ্ঠানিক হিসেব অনুযায়ী এখন পর্যন্ত এই গেমটির মোট ৩ কোটির কিছু বেশি কপি হয়েছে।

ভিডিও গেম

পোকেমন

পোকেমন, আমাদের তালিকার সপ্তম স্থানে থাকা গেমটির নাম প্রায় সবারই জানা থাকার কথা। গামেফ্রিক নামক একটি প্রতিষ্ঠানের তৈরি করা এই গেমটি এখনো এনিমেশন আকারে আমাদের খোড়াক যুগীয় চলেছে। বলাহচ্ছে ১৯৯৬ সালে মুক্তি পাওয়া পোকেমন গেমটির কথা। বিশেষ করে এর রেড, গ্রিন, ব্লু, এবং ইয়েলো, সংস্করণ গুলো মুক্তির পরপরই বাজারে তুমুল সারা ফেলে দিয়েছিল। এই খেলায় আপনার মূল লক্ষ ২ টি প্রথমটি হচ্ছে পর্যায়ক্রমে কর্পো রাজ্যের ক্যান্টর সেরা পোকেমন যুদ্ধে পরিণত হওয়া।

এর জন্য আপনাকে প্রথমে ৮ জন জিম লিডার কে যুদ্ধ পরাস্ত করতে হবে। তারপর দ্যা এলিট ফোর নাম পরিচিত সেরা ৪ পোকেমন প্রশিক্ষককেও যুদ্ধে পড়াজিত করতে হবে। তবেই ইন্ডিগো লীগের চ্যাম্পিয়ান হতে পারবেন। গেমটির দ্বিতীয় লক্ষ হচ্ছে মোট ১৫০ ধরণের পোকেমন চরিত্রের সবগুলো সংগ্রহ করা। আনুষ্ঠানিক হিসেব অনুযায়ী এখন পর্যন্ত গেমটির মোট বিক্রিত কপির সংখ্যা ৪ কোটি ৭৫ লক্ষ এরও বেশি।

ভিডিও গেম

সুপার মারিও ব্রিদার্স

সুপার মারিও ব্রিদার্স, আমাদের তালিকার ষষ্ঠ অবস্থানে থাকার গেমটিও বিশ্বব্যাপী সুপরিচিত। সুপার মারিও ব্রিদার্স নামক গেমটি মুক্তি পায় ১৯৮৫ সালে। এই গেম আপনি হয় মারিও অথবা দলগত খেলায় তার ভাই লুইগিকে বেঁচে নিতে পারবেন। তার পর খলনায়ক বাউচারের কাছথেকে রাজকুমারী ট্রাস্টউল কে উদ্ধারের অভিযানে নামতে হবে আপনাকে।

যাত্রাপথে বিষাক্ত ব্যাঙের ছাতার মত শত্রু এবং গর্ত এড়িয়ে যেতে হবে আপনাকে। এক্ষেত্রে অবশ্য সুপার মাশরুম ফায়ার ফ্লাওয়ার এবং স্টারমেনের মত পাওয়ার আপ গুলো আপনাকে বেশ সাহায্য করবে। আনুষ্ঠানিক হিসেবে এই গেমটির মোট  বিক্রির কপির স্যংখা প্রায় ৪ কোটি সাড়ে ৮২ লক্ষ।

ভিডিও গেম

প্লেয়ার আননোনস ব্যাটলগ্রাউন্ড

প্লেয়ার আননোনস ব্যাটলগ্রাউন্ড, বাণিজ্যিক সফলতার বিচারে সেরা ১০ টি ভিডিও গেমস এর তালিকায় পঞ্চচম স্থানে রয়েছে প্লেয়ার আননোনস ব্যাটলগ্রাউন্ড গেমটি। সংক্ষপে পাবজি নামের সুপরিচিত এই গেমটি মূলত একটি অনলাইন মাল্টিপ্লেয়ার ব্যাটোলরোয়েল ধারার গেম। ২০১৭ সালে মুক্তি পাওয়া গেমটি তৈরি করছে দক্ষিণ কোরিয়ার ভিডিও গেম নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ব্লোহোয়েল।

নির্মাতাদের বক্তব্য অনুযায়ী গেমটি ২০০০ সালে মুক্তি পাওয়া জাপানের চলচ্চিত্র ব্যাটলরয়েলের অনুকরণে তৈরি করা হয়েছে। একক বা দলগত ভাবে অংশগ্রহণের সুযোক থাকা এই গেম এ প্রতিযোগীদের একটা প্রতন্ত এলাকায় প্যারাসুটের মাধ্যমে নামিয়ে দেয়াহয়। তার পর প্রতিযোগিতা নিজের বেঁচে থাকার পাশাপাশি বাকিদের হত্যার চেষ্টা চালিয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত টিকে প্রতিযোগী বা দলটি জয়ী হিসেবে ধরে নেয়া হয়। অনুষ্ঠানিক হিসেব অনুযায়ী পাবাজি গেমটির মোট বিক্রিত কপির সংখ্যা ৫ কোটি।

ভিডিও গেম

উইই স্পোর্সট

উইই স্পোর্সট, আমাদের তালিকার চতুর্থ স্থানে থাকা ভিডিও গেমটির নাম উইই স্পোর্সট। ২০০৬ সালের নভেম্বরে মুক্তি পাওয়া এই গেমটিতে মূলত ৫টি খেলায় অংশগ্রহণের সুযোক রয়েছে। খেলাগুলো হচ্ছে টেনিস ,বেজবল, বোলিং গল্ফ এবং বক্সিং  পরাবাস্তব খেলাগুলোয় অংশ নিতে চাইলে আপনাকে উইই রিমোট নামক একটি বিশেষ রিমোট ব্যবহার করতে হবে।

টেনিস খেলতে চাইলে আপনাকে সেই রিমোটটি টেনিস রকেটের মত ঘুরাতে হবে। প্রতিযোগিতা মূলক খেলার পাশাপাশি এই গেম এ আপনার দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা আছে। লিংটিন্ড নির্মিত মোট বিক্রিত কপির সংখ্যা প্রায় ৮ কোটি ২৯ লক্ষ।

ভিডিও গেম

গ্রান্ড থেফট অটো ফাইভ

গ্রান্ড থেফট অটো ফাইভ, বাণিজ্যিক সফলতার বিচারে সেরা ১০ টি ভিডিও গেমস এর তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে রকস্টার গেমস নির্মিত গ্রান্ড থেফট অটো সিরিজের পঞ্চম সংস্করণ গ্রান্ড থেফট অটো ফাইভ।

২০১৩ সালে সেপ্টেম্বর মাসে মুক্তি পাওয়া গেমটি একটি সিঙ্গেল প্লেয়ার গেম। দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার অনুকরণে গড়ে তোলা একটি কাল্পনিক এলাকায় ৩ অপরাধী বিভিন্ন অপরাধ কর্ম সংগঠনের চেষ্টাকে কেন্দ্র করে তৈরি করা এই গেম এ আপনাকে সেই ৩ অপরাধীর ১ জন হিসেবে অংশ নিতে হবে ভিবিন্ন প্রতিষ্ঠানে ডাকাতি করার সময় আপনার পুলিশের সাথে ধরা পড়ার আসংখা থাকবে।

এসব অপরাধের সময় আপনাকে হয় গাড়ি চালক অথবা গুলি বর্ষণকারীর ভূমিকা পালন করতে হবে।আপনার অপরাধের সংখ্যা যত বাড়বে ততই বাড়বে আপনার ধরা পড়ার আশংকাও আনুষ্ঠানিক হিসেবে এখন পর্যন্ত এই গেমটির মোট বিকৃত কপির সংখ্যা ১১ কোটি।

ভিডিও গেম

টেট্রিস

টেট্রিস, বিশ্বকৰ্মনে হলেও আমাদের তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা গেমটি কোনো প্রতিষ্ঠান তৈরি করেনি। টেট্রিস নামক এই বিশ্বখ্যাতক গেমটি ১৯৮০ দশকে সোভিয়েজ সপ্টওয়ার নির্মাতা Alexey Pajitnov এক নির্মাণ কেন। টেট্রিস খেলায় পর্দাটা উপর থেকে নেমে আসা ৪খন্ড বিশিষ্ট ব্লগ গুলোকে কোন ফাক ছাড়া সারি বদ্ধভাবে সাজাতে হয়। গেমটির এমন অদ্ভুত নাম করণের পেছনে ইতিহাস হলো Pajitnov এর সবচে পছন্দের খেলা ছিল টেনিস।

আর নিজের নির্মিত এই গেম এ ৪ খন্ড বিশিষ্ট ব্লগ ব্যবহার করে খেলতে হওয়ায় গ্রিগ ভাষায় ৪ অর্থাৎ টেট্রার সাথে টেনিসের শেষ অংশ জুড়ে তিনি এর খেলাটির নাম দেন টেট্রিস। এটি ছিল সোভিয়েত রাশিয়া থেকে যুক্ত রাষ্টে আমদানিকৃত প্রথম কম্পিউটার গেম। উত্তর আমেরিকায় IBM এবং Commodore 64 মডেলের কম্পিউটারে খেলার জন্য গামেটিকে বাজারজাত করে Spectrum HoloByte একটি প্রতিষ্ঠান। আনুষ্ঠানিক হিসেবে এই গেমটির মোট বিকৃত কপির সংখ্যা ১৭ কোটি।

ভিডিও গেম

মাইনক্রাফ্ট

মাইনক্রাফ্ট, আমাদের তালিকার শীর্ষ স্থান অধিকারী ভিডিও গেমটি এতটাই বাণিজ্য সফল হয় যে সেই গেম এবং তা বাজার জাতকারী প্রতিষ্ঠানটিকে আড়াই বিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ২০ হাজার কোটি টাকায় কিনে নেয় মাইক্রোসফট। বিষয় কর বেপার হল তালিকার দ্বিতীয় গেমটির মতো এটিও এক ব্যাক্তির নির্মিত। বলছি বিশ্ব খ্যাতি ভিডিও গেম মাইনক্রাফ্ট এর কথা।

সুইডেনের কম্পিউটার বিজ্ঞানী Markus Persson এর তৈরী করা গেমটি ২০০৯ সালে মোহাম নামক একটি প্রতিষ্ঠান বাজারজাত করেছিল।এই খেলায় আপনাকে একই সাথে অভিযাত্রা সম্পদ সংগ্রহ নির্মাণ এবং সমর বিদ্যায় পারদর্শী হতে হবে। সার্ভাইভার মুডে খেলার সময় আপনাকে সম্পদ সংগ্রহ এবং খেলা চালিয়ে যাওয়ার জন্য চরিত্র টিকে বাঁচিয়ে রাখার দিকে মনোজকে দিতে হবে।

আরও পড়ুনঃ বিশ্বের সবচেয়ে আয়তনে বড় ১০টি দেশ -The 10 largest countries in the world

এছাড়া ক্রেয়েটিভ মুডে খেলতে চাইলে আপনার অফুরন্ত সম্পদ ভান্ডার থাকতে হবে। যা ব্যবহার করে আপনাকে দীর্গ স্থায়ী এবং টেকসই স্বভতা গড়ে তুলতে হবে। সব মিলিয়ে এই গামেটিকে খেলতে আপনাকে প্রচুর মাত্রা সৃজনশীল হতে হবে। এই গেমটি বাজারে এতটা জনপ্রিয় হয় যে আমাদের তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা টেট্রিস এর ২৭ বছর পর মুক্তি পেলেও এরই মধ্যে মাইনক্রাফ্ট টির বিক্রিত কপির সংখ্যা পৌঁছে গেছে ১৭ কোটি ৬০ লক্ষে।

ভিডিও গেম

তো এই ছিল আজকের পোস্ট যেখানে আমি আলোচনা করেছি সবচেয়ে জনপ্রিয় ১০টি ভিডিও গেম | Top 10 Video games নিয়ে আশা করি আপনাদের বুঝাতে সক্ষম হয়েছি । আশা করি পোস্টটি ভালো লেগেছে কেমন লেগেছে তা অবশ্যই কমেন্ট করে জানতে ভুলবেন না। এই রকম আরও পোস্ট পেতে চাইলে আমাদের সাথেই থাকুন। আমাদের পোস্ট গুলো যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে, অনুগ্রহ করে আমাদের পোস্ট গুলি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করবেন।

আরও পড়ুনঃ Top 10 ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার

যদি কোনো ভুল ত্রুটি হয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই ক্ষমা সন্দুর দৃষ্টিতে দেখবেন। ধন্যবাদ আপনাকে আর্টিকেলটি পরার জন্য ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন বিদায় নিচ্ছি আজকের মত আল্লাহ্‌ হাফেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.