September 22, 2021
ত্বকের যত্ন

মৌসুমি ফল ও সবজিতে ত্বকের যত্ন

মৌসুমি ফল ও সবজিতে ত্বকের যত্ন

হাই বন্ধুরা কেমন আছেন সবাই? আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমিও ভালো আছি আপনাদের দোয়ায়। বন্ধুরা আপনারা জানেনই যে আমরা আপনাদের মাঝে প্রতিদিন কিছু না কিছু বিষয় তুলে ধরি,আজও আপনাদের মাঝে এমন একটা বিষয় তুলে ধরবো তাহল : মৌসুমি ফল ও সবজিতে ত্বকের যত্ন।

আসলে আপনারা আমাদের টাইটেল দেখে আগেই বুঝতে পেরেছেন যে আজ আমরা আপনাদের সাথে কোন বিষয় শেয়ার করতে যাচ্ছি। তো বন্ধুরা চলুন জেনে আসি মৌসুমি ফল ও সবজিতে ত্বকের যত্ন কিভাবে করতে হয়।

আমাদের দেশে ২ মাস ব্যাপী করে ৬ টি ঋতু আবর্তিত হয়। একেক ঋতুতে একেক রকম রূপ নিয়ে হাজির হয়।
সেই সাথে হরেক রকমের ফল ও সবজি পাওয়া যায়। আর সেই সবজি যদি আমাদের ত্বকের কাজে আসে তাহলে তো কোন সমস্যা নেই। বন্ধুরা আপনারা জানেন যে শীত চলে গেছে অনেক দিন হল গীষ্মকাল চলে এল। আবহওয়া বদলে যাচ্ছে। আর এই আবহাওয়া পরিবর্তনে প্রভাব এ সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে আমাদের ত্বক।

আপনারা একটু খেয়াল করলে দেখবেন যে আমাদের শরীর বা ত্বক কেমন যেন হয়ে যাচ্ছে এবং কোমলতা হারিয়ে ফেলছে। ফলে চেহারা তার আসল রূপ হারিয়ে ফেলছে হয়ে যাচ্ছে নিষ্প্রাণ। এমনবস্থায় আমাদের করণীয় হল আমাদের শরীরের প্রতি একটু যত্নশীল হওয়া। আর এই যত্ন এর জন্য আমরা অনেক টাকা ব্যয় করে থাকি। আর যদি আমরা একটু বিশেষ যত্ন নেই তাহলে আমাদের এত টাকা খরচ করতে হবে না।

এখন আমাদের নিকটে বাজার সেই বাজারে প্রতিদিন দেখা যায় হরেক রকমের সবজি। আর এই সবজি দ্বারা আমরা নিতে পারি ত্বকের বাড়তি যত্ন। কারণ আমরা প্রতিদিন খাবারের জন্য ফল ও সবজি কিনে থাকি। যদি সেই ফল ও সবজি একটু বাড়তি করে কিনে সেটা যদি ত্বকের যত্নে কাজে লাগাই তাহলে আমাদের ত্বক থাকে সুস্থ ও সুঠাম।

শুধু মৌসুমী ফল ও সবজি ত্বকে ব্যবহার করলে হবে না সেই সাথে প্রাত্যহিক জীবনে আনতে হবে আমূল পরিবর্তন। তাছাড়া এ সময় বেশি পরিমানে ফল ও পানি পান করা প্রয়োজন। তাছাড়া মাসে ৬ থেকে ৭ বার ফেসপ্যাক লাগানো প্রয়োজন। এছাড়াও ভেষজ উপাদান দ্বারা আমরা প্রাকৃতিক ভাবে ত্বকচর্চা করতে পারি। এতে কোন সমস্যা দেখা দেয় না। তো বন্ধুরা চলুন দেখে আসি কোন ফল ও সবজি দিয়ে ত্বকের যত্ন নেওয়া যায়।

শসা (Cucumber)

তৈলাক্ত যুক্ত ত্বকের জন্য শসা ভালো কাজ করে। শসার রস, সয়াবিন, মধু, আঙুরের পেস্ট লাগালে ত্বকে উজ্জ্বল ভাব দেখা যায়। এবং তৈলাক্ত ভাব অনেকটা কমে যায়। শুষ্ক ত্বকের জন্য ১ চা-চামচ ওটমিল ও পরিমাণ মতো শসা পেস্ট একসাথে মিশিয়ে ২০ থেকে ২৫ মিনিট রাখুন। এবং মুখে ও ঘাড়ে ভালো মতো মেখে ২০ থেকে ২৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। এর সাথে একটু মধু নিলে আরও ভালো হয়। কারণ মধু ত্বকের সৌন্দর্য ধরে রাখে।

তাছাড়া ত্বক যত স্বাভাবিক থাকবে সমস্যাও তত কম হবে। এমনকি আপনি আপনার ত্বক পরিষ্কার রাখার জন্য শসার চাকা ও পাতি লেবুর রস মুখে লাগাতে পারেন। ফলে আপনার ত্বক সব সময় পরিস্কার ও উজ্জ্বলতায় ভরপুর থাকবে বলে আমি মনে করি। তাই বলা যায় ,আপনি যদি শসার ব্যবহার এই ভাবে করেন তাহলে আমি ১০০% সিউর আপনার ত্বক ভালো থাকবে।

ত্বকের যত্ন

তরমুজ (Watermelon)

সুন্দর ত্বকের জন্য তরমুজ ব্যাপক ভাবে কাজ করে। কারণ আপনি যদি এক টেবিল চামচ তরমুজের রস এবং এক টেবিল চামচ দই এক সাথে মিশিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট ত্বকের উপর রেখে দিন। তারপর আপনি ঠান্ডা পানি দিয়ে ভালো ভাবে মুখটি ধুয়ে ফেলুন।

আবার আপনি ১ টেবিল চামচ তরমুজের রস এবং ১ টেবিল চামচ মধু ভালো ভাবে মিশিয়ে নিন। এরপর ১৫-২০ মিনিট ত্বকে রেখে হালকা গরম পানি দিয়ে মুখটি ধুয়ে ফেলুন। এছাড়াও আপনি এ গুলা নানা ভাবে ব্যাহার করতে পারেন। এমনকি কয়েকটি তরমুজের টুকরা ব্লেড করে সাথে ১ টেবিল চামচ চালের গুঁড়া নিয়ে হাতে ও পায়ে ব্যবহার করতে পারেন। ফলে আপনার শরীর থাকবে সব সময় সতেজ।

ত্বকের যত্ন

কাঁচা হলুদ (Raw turmeric)

ত্বককে উজ্জ্বল ও সতেজ রাখতে কাঁচা হলুদের কোন জুড়ি নেই। কারণ আপনি যদি কাঁচা হলুদ,অলিভ অয়েল, লেবুর রস, ডিমের সাদা অংশ, গোলাপজল এক সাথে মিশিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রাখেন তাহলে আপনার ত্বক আরও উজ্জ্বল এবং আরও সতেজ হবে।

তাছাড়া কাঁচা হলুদ, চন্দনগুঁড়া, কমলার রসের মাস্ক বানিয়ে মুখে ভালো ভাবে রাখলে ত্বকের তৈলাক্ত ভাব দূর হয়ে যায়। তাছাড়া ত্বকে একটু হলুদ গুঁড়া এবং মধু মিশিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রাখলে ভালো সুফল পাওয়া যায়। এছাড়াও শরীরের দাগ দূর করতে কাঁচা হলুদের কোন বিকল্প নেই। আর এই দাগ দূর করতে কাঁচা হলুদের গুঁড় এবং লেবুর রস মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।

ত্বকের যত্ন

আঙুরের রস (Grape juice)

আমাদের ত্বকের জন্য অপরিহার্য ভূমিকা পালন করে আঙুরের রস। এটা সব ধরনের ত্বকে ব্যবহার করা যায়। কয়েকটি আঙ্গুর হাত দিয়ে আলতো করে মুখে ঘষে ১৫-২০ মিনিট রস লাগিয়ে রাখুন। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ফলে এটি প্রাকৃতিক ফেসওয়াশের মতো কাজ করে।

আরও পড়ুনঃ নিস্তেজ ত্বক এবং চুল ক্ষতি রোধ করতে কী করবেন?

এছাড়াও আঙ্গুর বেটে ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। শুকে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন ফলে মুখের কালো ভাব দূর করে মুখের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। তাই আমরা যদি প্রত্যাহিক এই ভাবে আঙ্গুর ব্যবহার করি তবে দিন শেষে আমরা ভালো একটা ফল পাব।

ত্বকের যত্ন

তাই আমি বলব, আপনারা যদি উপরের ফল ও সবজি গুলো ভালো ভাবে ব্যবহার করতে পারেন তাহলে আপনার ত্বক ভালো করার জন্য এগুলা হাতিয়ার হিসেবে কাজ করবে। তাছাড়া এগুলার আর একটি সুবিধা হল এগুলা আমাদের হাতের কাছেই পাওয়া যায়। ফলে আমরা সহজেই এগুলা ব্যবহার করতে পারি। এবং ভালো ফলও পাই। তাই আমাদের ত্বক সুস্থ রাখতে এগুলা ব্যবহারের কোন বিকল্প নাই।

আরও পড়ুনঃ ওজন কমাতে চান কিন্তু শুরু করবেন কিভাবে ?

তো বন্ধুরা আজ এতটুকুই দেখা আবার এরকম আরো হেলথ টিপস নিয়ে ততক্ষণ সুস্থ থাকুন সুন্দর থাকুন। আর হ্যা এত সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ। যদি আমাদের এই টিপস টি ভালো লেগে থাকে তাহলে লাইক, কমেন্ট এবং শেয়ার করতে ভুলবেন না। আর এরকম সুন্দর সুন্দর টিপস পেতে আমাদের সাথেই থাকুন। খোদা হাফেজ।

Writing By
Shapon Ahmed

Leave a Reply

Your email address will not be published.